সালমান শাহ ও সুশান্ত সিং রাজপুত এর পথে হিরো আলম

0
11437
সালমান শাহ সুশান্ত সিং রাজপুত এর পথে হিরো আলম
ফাইল ছবি

সালমান শাহ ও সুশান্ত সিং রাজপুত এর পথে হিরো আলম

ঢাকাই ছবির জনপ্রিয় নায়ক অনন্ত জলিল কদিন আগেই আলোচিত হিরো আলমকে নিয়ে ছবি বানানোর ঘোষণা দেন। ছবির জন্য পঞ্চাশ হাজার টাকা সাইনিং মানিও দেন হিরো আলমকে। কিন্তু হঠাৎই অনন্ত জলিল তার সিনেমা থেকে বাদ দিয়েছেন হিরো আলমকে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) বিষয়টি নিশ্চিত করে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন অনন্ত জলিল।

সেখানে তিনি লেখেন, আমি হিরো আলমকে নিয়ে কোন সিনেমা বানাবো না এবং পঞ্চাশ হাজার টাকা সাইনিং মানি ফেরৎ নিব না।

তিনি লেখেন, সিংহভাগ বিনোদন সাংবাদিকরা এবং চলচ্চিত্র পরিবারের সকল গুণীজনরা হিরো আলম কে নিয়ে সিনেমা বানানোর আপত্তি জানাচ্ছেন। এবং রিসেন্টলি তার কিছু অশ্লীল ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সকলেই আবারো আমাকে নিষেধ করছেন, তাকে নিয়ে যেন সিনেমা না বানাই।
সব সময় আমি বিব্রত হচ্ছি, হিরো আলমের এসব বিতর্কিত বিষয় গুলোর জন্য। দীর্ঘদিন যাবৎ আমি চলচ্চিত্র অঙ্গনে সম্মানের সহিত কাজ করে আসছি, চলচ্চিত্রের প্রতিটি সংগঠনের সাথে ভালো সম্পর্ক আছে, প্রতিটি সংগঠনই আমাকে সম্মানের চোখে দেখে তাই এই সম্মান রক্ষার্থে , বিতর্কিত কাউকে নিয়ে আমি সিনেমা বানাতে চাই না।

আরো জানুনঃ- 

হিরো আলমকে বাদ দেওয়ায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন জনতা

অনন্ত আরো লেখেন, আরকটি কারণ, উল্ল্যেখ না করলেই নয়। কিছুদিন আগে আমি নিজ উদ্যোগে জায়েদ খানের সঙ্গে হিরো আলমকে মিল করিয়ে দিয়েছিলাম, এবং প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও তাদেরকে নিয়ে একসঙ্গে লাঞ্চ করেছিলাম।
মীমাংসা করে দেওয়ার পরেও একই বিষয় নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় হিরো আলম মন্তব্য করছেন যা মোটেও কাম্য নয়। আমার এত ব্যস্ততার মাঝেও আমি তাকে পাশে বসিয়েছিলাম, সে আমার মর্যাদা বোঝে নাই। আমার মর্যাদা যেহেতু বোঝে নাই তাই আমি চাইনা ভবিষ্যতে তার দ্বারা আমার মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হোক। এ ধরনের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য মানুষের সঙ্গে আমার কাজ করা সম্ভব না।

তবে হিরো আলম এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তার দাবি অনন্ত জলিল অশ্লীলতার কারণের তাকে সিনেমা থেকে বাদ দেননি। বরং তিনি ফোন করে বলেছেন, তুমি জায়েদ খানের বিরুদ্ধে কেনো কথা বললে। তুমি আমার সম্মান রাখোনি, এই কারণে তোমাকে সিনেমা থেকে বাদ দেয়া হলো।

হিরো আলম প্রশ্ন তুলে বলেন, অনন্ত জলিল যদি আমাকে নিয়ে সিনেমা বানায় এখানে জায়েদ খানকে নিয়ে কি প্রশ্ন। জায়েদ খানকে প্রযোজক সমিতি বয়কট করলো, এর জন্য আমি কিসের দায়ী।

হিরো বলেন, তিনি মানুষকে বলেন, অনন্ত জলিল কথা দিলে কথা রাখে। এটা কেমন কথা রাখা হলো তা জানি না।

তিনি বলেন, সালমান শাহ’র কথাই ধরেন। অল্প সময়ে দ্রুত রান করেছিলো। কেউ বলে আত্মহত্যা করেছে, কেউ বলে তাকে মেরে ফেলেছে। জানি না, আমি কবে মারা যাবো। মানুষ যে পর্যায়ে শুরু করেছে তাতে যেকোনো পর্যায়ে আমিও মারা যেতে পারি। হিরো আলমকে অনেকে হ্যারাস করার চেষ্টা করছে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত কেউ তা করতে পারেনি। যখন কেউ হ্যারাস করতে পারবে না তখন কিন্তু হিরো আলমকে মেরে ফেলবে।

সুশান্ত সিং রাজপুতের উদাহরণ টেনে হিরো আলম বলেন, কদিন আগে বলিউড তারকা সুশান্ত মারা গেল। তিনি আত্মহত্যা করলেন, কেন? এই একটা কারণে। পরপর কয়েকটা সিনেমা থেকে কিন্তু উনাকে বাদ দেয়া হয়েছিল। কয়েকটা সিনেমা থেকে বাদ দেয়ায় মানসিক টেনশনের কারণেই কিন্তু তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন।

তিনি বলেন, আমি হিরো আলম না হয়ে অন্য কেউ হলে এতদিন আত্মহত্যা করতো। দেখেন, শামিম হাসানের সাথে ভেজাল, জায়েদ খানের সাথে ভেজাল, আকাশ নিবিড়ের সাথে ভেজাল, আকাশ নিবিড় সাথি নামের একটা মেয়েকে আমার পিছনে লাগালো, তার সাথে ভেজাল, আবার ধরেন জালিল ভাইয়ের সাথে ভেজাল… কি হইতেছে আমার সাথে!

অনন্ত জালিলকে উদ্দেশ্য করে হিরো আলম বলেন, আপনি আমার যে সম্মানহানি করেছেন সেটার বিচার জনগণ করবে।

আরো জানুনঃ- 

কে এই পরান মাহমুদ ও আকাশ নিবির?

অবশেষে রহস্যের জট খুলল, ফাঁস হলো আকাশ নিবির ও পরান মাহমুদের কুকর্মের ফল।
ফাইল ছবি

📎অবশেষে রহস্যের জট খুলল, ফাঁস হলো আকাশ নিবির ও পরান মাহমুদের কুকর্মের ফল। সত্য কখনো চাপা থাকে না।

সম্প্রতি বিভিন্ন মিথ্যে কেলেঙ্কারির অপবাদ দিয়ে হিরো আলমকে অপদস্ত করতে ছিল একটি মহল। এর প্রধান দুই ব্যক্তি হলো স্থানীয় সাংবাদিক আকাশ নিবিড় ও প্রবাসী পরান মাহমুদ। এখন কথা হচ্ছে কেন আকাশ নিবির ও পরান মাহমুদ হিরো আলমের বিরুদ্ধে কথা বলেছে, এটা মূলত সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত হিংসা থেকে এর বাহিরে আর কিছু নয়। যে সাথী আক্তার মেয়েটিকে দিয়ে পরান মাহমুদ ভিডিও বানিয়ে ছিল আজ সেই সাথি আকতার হিরো আলমের ফেসবুক পেজ থেকে লাইভে এসে তার সমস্ত অপরাধ প্রকাশ করে ক্ষমা চেয়েছে।

📎অবশেষে রহস্যের জট খুলল, ফাঁস হলো আকাশ নিবির ও পরান মাহমুদের কুকর্মের ফল।

এদিকে পরান মাহমুদ এর বিষয় খতিয়ে দেখতে গিয়ে ধরা পরল সকল তথ্য। মূলত পরান মাহমুদ যে ব্যক্তিটি হিরো আলমের বিরুদ্ধে ফেসবুক লাইভে এসে কথাবার্তা বলেছে সে ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকে বলেছে এবং তার ফেসবুক পেজ অনুসন্ধান করে দেখা গেল সে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মেয়েদেরকে দিয়ে তার পেজ এ লাইভ এ আনে সে ওই পেজ বুস্ট করার মাধ্যমে সকলের কাছে পৌঁছে দেয় এবং যাদেরকে তার ফেসবুক লাইভে আনে তাদের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। মূলত তার টার্গেট এই হচ্ছে, বিভিন্ন মেয়ে। এরকম বেশ কিছু গোপন ফেসবুক চ্যাট প্রকাশ হয়েছে। সে বিভিন্ন মেয়েদেরকে ফুসলিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে।

অন্যদিকে আকাশ নিবিড় হচ্ছে বগুড়ার স্থানীয় সাংবাদিক তার বিরুদ্ধে তেমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি কিন্তু এটা প্রমাণিত যে আকাশ নিবির হচ্ছে হিরো আলমকে অপদস্থ করার মূল নায়ক।

এদিকে হিরো আলম বলেন, আমাকে হেয় করার জন্য অনেকেই বিভিন্নভাবে উঠে পড়ে লেগেছে। আমাকে উপরে উঠতে না দেওয়ার জন্য তারা এই ব্যবস্থা করছে। আর যারা এই কাজটি করছে তারা মূলত আমার ক্ষতি করার জন্য এই কাজটি করে যাচ্ছেন।

আরও জানুন-

🖇অবশেষে রহস্যের জট খুলল, ফাঁস হলো আকাশ নিবির ও পরান মাহমুদের কুকর্মের ফল।

বিকেলে হিরো আলম ডেইলি সিলেট ২৪ ডটকম নিউজকে বলেন, যে মেয়েটি আমার নামে থানায় অভিযোগ ব সাথী আক্তার কে নিয়ে লাইভে এসেছিলাম। লাইভে এসে অকপটে স্বীকার করে এবং দোষীদের কে চিহ্নিত করে বলে তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য আমাকে ব্যবহার করেছে।

দুটি কথাঃ-হিরো আলমের সাথে এই কথাটা বেশ ভালভাবেই যায়। হতদরিদ্র অবস্থা থেকে আজকের এই হিরো আলম শুধু স্বপ্ন দেখেছিলেন বলেই আসতে পেরেছেন।

তাকে বিভিন্ন ভাবে আমরা ট্রল করি, উপহাস করি, তার গ্রাম্য টান নিয়ে হাসাহাসি করি কিন্তু ভাবিনা আমরা একজন মানুষকে কিসের ভিত্তিতে বিচার করছি।

আমর মনে হয় হিরো আলমরা ঠিকই আছে এই আমরাই বিকারগ্রস্থ। আমাকে একবার পচানি দেওয়ার জন্য বলা হয়েছিল “ আপনাকে হিরো আলমের মত লাগছে” ভাবা যায়, এই যুগেও আমাদের এহেন মানুষিকতা।

মানুষটা সাহস দেখিয়েছেন সংসদে যাওয়ার, মানুষটা সাহস দেখিয়েছেন প্রতিবাদী হবার। যা কিনা আমাদের অনেক তথা কথিত সুশীলদের মাঝে নেই৷

আমি দেখেছিলা অসংখ্য ট্রল হাসাহাসি নির্বাচনের সময়, সাংবাদিকরা টিভিতে ডেকে এনে তাকে অপমান করছে কেবল মাত্র তিনি নোমিনিশন কিনেছিলেন বলে! এত অপমান এত ট্রল তারপর এই লোক কি সুন্দরভাবেই সব সামলেছেন! তার কাছ থেকে শিখার অনেক কিছুই আছে।

আমি মনে করি একটা ডিগ্রি, আর বইয়ের কয়েকটা পাতা পড়াই শিক্ষিত আর অশিক্ষিত মানুষের মাপকাঠি হতে পারে না।

সরাসরি আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে এখানে ক্লিক করুন

২০১৬ সালে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আলোচনায় আসেন আশরাফুল আলম ওরফে ডিশ আলম ওরফে হিরো আলম। বগুড়ার এরুলিয়া গ্রাম থেকে ঢাকা এসে ক্রমশ নিজের জায়গা করে নেন আলম। ২০১৭ সালে হিরো আলম অভিনীত প্রথম ছবি মার ছক্কা মুক্তি পায়। ২০১৮ সালে তিনি বিজু দ্য হিরো নামে একটি বলিউড চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন। এ ছাড়া বাংলাদেশে বেশ কিছু বিজ্ঞাপনচিত্র ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে