ধর্ষণকারী যদি প্রমাণিত হয়, তবে অবশ্যই তার ফাঁসি হওয়া উচিত। জায়েদ খান

0
424
চিত্রনায়ক জায়েদ খান
ফাইল ছবি

বর্তমান সময়ের আলোচিত মডেল অভিনেতা জায়েদ খান।

সাম্প্রতিক সময়ে ডেইলি সিলেট ২৪ ডটকম কে মোবাইল ফোনে এ কথা বলে জানিয়েছেন বিস্তারিত।

ডেইলি সিলেটঃ আপনি অভিনয় জগতে পা রেখেছেন কত বছর হয়েছে?

জায়েদ খানঃ ২০০৮ সালে মহম্মদ হান্‌নান পরিচালিত ভালবাসা ভালবাসা চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিনয় জীবন শুরু হয়। আমি বর্তমানে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছি।

ডেইলি সিলেটঃ বর্তমান ব্যস্ততা সম্পর্কে জানবো-

জায়েদ খানঃ বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে সময়টা অনেক খারাপ যাচ্ছে। হাতে অনেক কাজ আছে কিন্তু কোন কাজই করা হচ্ছে না। এটা শুধু আমার বেলায় না। প্রত্যেকটা প্ল্যাটফর্মের ব্যক্তিদেরই একই অবস্থা। সারা পৃথিবী ব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাস তাণ্ডবে সবকিছু এলোমেলো।

ডেইলি সিলেটঃ দেশে মহামারির চেয়েও ভয়ংকর রূপে ছড়িয়ে পড়েছে ধর্ষণ। এ সম্পর্কে আপনি কি বলবেন?

জায়েদ খানঃ ধর্ষণ বন্ধে পুরুষকেই জাগতে হবে সবার আগে। তাদের বুঝতে হবে, নারীর পোশাক বা অন্য কিছু নয়, পুরুষের অনিয়ন্ত্রিত ও বিকৃত যৌন আকাঙ্ক্ষাই ধর্ষণের সবচেয়ে বড় কারণ এবং পুরুষের সবচেয়ে বড় অসুস্থতা।

অনেক তো হলো, আর কত? এবার জাগুন পুরুষ বন্ধুরা। এতটুকু সৎ সাহস দেখান। লাগাম পড়ান নিজের বিকৃত যৌনাকাঙ্ক্ষায়। যতদিন পর্যন্ত না আপনারা নিজেরা নিজেদের বিরুদ্ধে দাঁড়াবেন, ততদিন ধর্ষণের এই মহামারী বন্ধ হবে না। যতই আইন হোক, যতই কঠোর থেকে কঠোরতর শাস্তির বিধান রাখা হোক, যতই হারকিউলিসের আবির্ভাব ঘটুক, কিচ্ছু হবে না।

আপনাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক।

ডেইলি সিলেটঃ ধর্ষণের শাস্তি সর্বোচ্চ কি হওয়া উচিত আপনি মনে করেন?

জায়েদ খানঃ আমি মনে করি ধর্ষকদের শাস্তি ফাঁসি হওয়া উচিত। একইসঙ্গে শাহবাগে আন্দোলনকারীদের ধন্যবাদ জানিয়ে তাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি তো মনে করি ধর্ষণকারী যদি প্রমাণিত হয়, তবে অবশ্যই তার ফাঁসি হওয়া উচিত জায়েদ খান। আমি ধর্ষণের প্রতিবাদে যারা রাস্তায় নেমেছেন তাদের স্বাগত জানাই। ধর্ষণকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির জন্য তারা আন্দোলন করছে। কিন্তু এই আন্দোলনের পেছনে যাতে অন্য কোন উদ্দেশ্য না থাকে।’

জায়েদ খান বলে, ‘এদেশের ৫০ শতাংশ নারী। আমি নারীদের উদ্দেশ্যে বলব ধর্ষক, ধর্ষকই। তার কোন সামাজিক, রাজনৈতিক ও পারিবারিক পরিচয় নেই। যে ধর্ষক সে নিশ্চয়ই সে কোন না কোন মায়ের সন্তান। আমি সেই মাকে আহ্বান জানাব, আপনি এই ধর্ষক পুত্রকে বর্জন করুন। নিশ্চয়ই ধর্ষণকারী কারো না কারো পিতা, আমি সন্তানদের বলব, যাতে তারা ধর্ষণকারী পিতাকে বর্জন করে। ধর্ষণকারী নিশ্চয়ই আপনাদের আমাদের কারো না কারো ভাই, সেই ধর্ষণকারী ভাইকে যাতে তারা বর্জন করেন। আমি সমাজের প্রতি আহ্বান জানাব, সমাজ যাতে এই ধর্ষণকারীদের প্রত্যাখ্যান করেন। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতি আমি আহ্বান জানাব ধর্ষণকারীদের যাতে তারা বহিষ্কার করে।

ধর্ষণের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ একটি অসুস্থ মানসিকতা কাজ করে উল্লেখ করে জায়েদ খান বলেন, ধর্ষণ রোধে দরকার সচেতনতা। এখানে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। এভাবেই সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা এই নির্যাতন বন্ধ করতে পারব। সবচেয়ে বড় দায়িত্ব মা-বাবার। সন্তানেরা কোথায় যায়, কি করে, কার সাথে চলাফেরা করে সেটা তাদের জানতে হবে।

অন্য সংবাদ গুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন

ডেইলি সিলেটঃ চিত্রনায়িকা পপি কে নিয়ে গুঞ্জন শোনা গেছিল জায়েদ খানের সাথে পপির প্রেমের সম্পর্ক আছে।

জায়েদ খানঃ এটা সত্যিই গুজব। পপি আমার খুব ভাল ফ্রেন্ড। কখনোই ওর সাথে প্রেমের সম্পর্ক হতে পারে না। যারা এসব গুজব ছড়াচ্ছে তারাসমাজের ভাইরাস।

ডেইলি সিলেটঃ ধন্যবাদ আপনাকে আপনার মূল্যবান সময় দেওয়ার জন্য।

জায়েদ খানঃ আপনাকেও ধন্যবাদ সুন্দর উপস্থাপনার জন্য।

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে