16 ই অক্টোবর একযোগে সারাদেশে মুক্তি পাচ্ছে সাহসী হিরো আলম

0
4959
সাহসী হিরো আলম ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে 16 ই অক্টোবর
ফাইল ছবি

16 ই অক্টোবর একযোগে সারাদেশে মুক্তি পাচ্ছে সাহসী হিরো আলম

করোনার ঝুঁকি এড়াতে প্রায় সাত মাস ধরে বন্ধ আছে দেশের সকল প্রেক্ষাগৃহ। অবশেষে সিনেমা হলের উপর থেকে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হচ্ছে। আগামী ১৬ অক্টোবর দেশের সব প্রেক্ষাগৃহ খুলতে পারে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ।

গত সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে হল মালিক সমিতির সঙ্গে বৈঠক শেষে এমন তথ্য জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন তথ্য সচিব কামরুন নাহার, চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস ও সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মিঁয়া আলাউদ্দিন সহ অনেকেই।

সিনেমা হল খোলার বিষয়ে হাসান মাহমুদ জানান, দেশে করোনা পরিস্থিতি যে পর্যায়ে রয়েছে তা যদি কমতে থাকে তাহলে আগামী ১৬ অক্টোবর প্রেক্ষাগৃহ খুলে দেওয়া হতে পারে বলে বিষয়টি ক্লিয়ার করেছেন। তবে সেটি অবশ্যই প্রধানমন্ত্রীর সম্মতিক্রমে। শুরুর দিকে স্বাস্থবিধি ও নির্দেশনা মেনে অর্ধেক দর্শক নিয়ে প্রেক্ষাগৃহ চালু করতে হবে। তবে পরিস্থিতির অবনতি হলে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হবে।

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বর্তমানে পুরো দেশে করোনা পরিস্থিতি খানিকটা স্বাভাবিক রয়েছে। এরই মধ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। সেই বিবেচনায় সিনেমা হলগুলোও খুলে দেওয়া হতে পারে।

করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর চলতি বছরের মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে দেশের সব প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ রয়েছে। এর মাঝে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা একাধিকবার নানা আলোচনা ও বৈঠক করে সিনেমা হল খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন, চলচ্চিত্রের সঙ্কট ঘোচাতে যেন স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি নির্দেশনা মেনে আবারও হলগুলো খুলে দেওয়া হয়।

এইদিক, হিরো আলমের প্রযোজনায় প্রথম সিনেমা ‘সাহসী হিরো আলম’ সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পেয়েছে গত মার্চ মাসে কিন্তু হঠাৎ পৃথিবীব্যাপী করোনা ভাইরাস এর মহামারী শুরু হয়েছে সেই তান্ডব বাংলাদেশে এসে পৌঁছেছে। আশা রাখি আগামী ১৬ অক্টোবর মুক্তি পাবে চলচ্চিত্রটি। বর্তমান করোনাভাইরাস অনেকটাই স্থিতিশীল।

ছবিটি পরিচালনা করেছেন এ আর মুকুল নেত্রবাদী। পরিচালক দাবি করেছেন, ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খানের চেহারা ভালো হলেও তিনি হিরো আলমের চেয়ে জনপ্রিয় নন। ‘সাহসী হিরো আলম’ ছবির নাম-ভূমিকায় অভিনয় করেছেন হিরো আলম। তাঁর বিপরীতে তিন নায়িকা অভিনয় করেছেন। তাঁরা হলেন– সাকিরা মৌ, রাবিনা বৃষ্টি ও নবাগত নুসরাত জাহান। এরই মধ্যে ছবির পোস্টার মুক্তি পেয়েছে। পোস্টারে দেখা যাচ্ছে, উদোম গায়ে হিরো আলম আর তাঁর শরীর পেঁচিয়ে ধরেছে অজগর। পোস্টারের একদম ওপরের দিকে তিন নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ ভঙ্গিমায় হিরো। পোস্টারে হেলিকপ্টারেও হিরোকে ঝুলতে দেখা যাচ্ছে। হিরো আলম ও পরিচালকের মতে ছবিটি বাজিমাত করবে আশা করি দর্শকরা উপভোগ করবে।

সরাসরি আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে এখানে ক্লিক করুন

অনেকে ছবির মান ও রুচি নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। অবশ্য হিরো আলমের অনুরাগীর সংখ্যাও কম নয়। ছবির মান নিয়ে প্রশ্ন করা হলে পরিচালক মুকুল নেত্রবাদী বলেন, ‘ছবিটি মানহীন হবে কেন? যেহেতু সেন্সর বোর্ড ছবিটির অনুমতি দিয়েছে, তাই ছবিটি ভালো ছবি। কারণ, যাঁরা সেন্সর বোর্ডে বসে আছেন, তাঁরা তো আর মূর্খ নন। তা ছাড়া হিরো আলম বাংলাদেশে তুমুল জনপ্রিয়। দেশের বাইরেও তাঁর ফ্যান রয়েছে। শাকিব খানের চেহারা ভালো আর হিরো আলমের চেহারা খারাপ। বর্তমানে শাকিব সবচেয়ে জনপ্রিয় সিনেমা প্রেমীদের কাছে

আর হিরো আলম সব শ্রেণির মানুষের কাছে জনপ্রিয়। যে কারণে আমি মনে করি, শাকিব খান হিরো আলমের চেয়ে বেশি জনপ্রিয় নয়।’ হিরো আলমকে ‘সাহসী’ দাবি করে মুকুল বলেন, “ছবির নাম যেমন ‘সাহসী হিরো আলম’, সত্যিকার অর্থেই আলম অনেক সাহসী মানুষ। আর তাঁর জীবন নিয়েই ছবিটি নির্মাণ করা হয়েছে।” ছবির পোস্টারে দেখা যায় হিরো আলম হেলিকপ্টারে ঝুলছেন, অজগর সাপ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। বাস্তব জীবনেও কি তিনি এমন সাহসী?

পরিচালক মুকুল বলেন, ‘আসলে এসব বিষয় রূপক অর্থে দেখানো হয়েছে। গল্পে দেখা যাবে—আলম হিরো হওয়ার জন্য এক তান্ত্রিক বাবার সঙ্গে দেখা করেন। সেখানে গিয়ে হিরো হওয়ার আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করেন বাবার কাছে। তবে তাঁর চেহারা খারাপ। এখন আলম কী করবেন? তখন, বাবা দোয়া করে দেওয়ার পর সিনেমার হিরো হন আলম। তাঁর প্রেমে হাবুডুবু খান তিন নায়িকা। এ জন্য ছবিতে তিন নায়িকা ব্যবহার করা হয়েছে। ছবিতে যা দেখবেন, সবই গল্পের প্রয়োজনে।

গল্পের প্রয়োজনেই আলম হেলিকপ্টারে ঝোলেন, অজগর সাপ নিয়ে খেলেন।’ ছবিটি দর্শকপ্রিয়তা পাবে, আশা করে এ পরিচালক আরো বলেন, ‘শাকিব খানের ছবিতে যেমন ফাইট, ড্যান্স থাকে; এই ছবিতেও আছে। যেকোনো কমার্শিয়াল ছবির চেয়ে এটি কম নয়। ছবিটি ভালো ব্যবসা করবে বলে আমি আশা করি।’ পরিচালকের মতোই আশাবাদী হিরো আলম। তিনি বলেন, “আমি সাহসী, কোনো কিছুকেই ভয় পাই না। তাই সিনেমার নামও রেখেছি ‘সাহসী হিরো আলম’।

এদিকে হিরো আলম বলেন, আমার বিশ্বাস অন্য যে সিনেমাই মুক্তি পাক, আমার সিনেমা দেখতে একবার হলেও মানুষ হলে যাবে। কারণ আমার প্রতি মানুষের ভালোবাসা রয়েছে।” ‘সাহসী হিরো আলম’ কতটা দর্শকপ্রিয় হয়, তা দেখতে দর্শককে ঈদ পর্যন্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

প্রসঙ্গত, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মাধ্যমে উঠে আসেন হিরো আলম। তার প্রকৃত নাম আশরাফুল আলম। একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার মধ্য দিয়ে তার পরিচিতি আরো বাড়ে। তিনি বগুড়া-৪ আসনে স্বতন্ত্র প্রতীকে নির্বাচন করেন। নির্বাচন কমিশনকে হাইকোর্ট দেখানো হিরো আলম নির্বাচনের পুরোটা সময় ছিলেন আলোচনায়। হির

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে