মোদির আগমনে বিশ্বের সাত টি শক্তিশালী দেশ এর স্পেশাল ফোর্স নিরাপত্তার কাজে অংশগ্রহণ করছে বিস্তারিত জানুন

0
2871
বিশ্বের সাত টি শক্তিশালী দেশ এর স্পেশাল ফোর্স নিরাপত্তার
সংগৃহীত ছবি

মোদির আগমনে বিশ্বের সাত টি শক্তিশালী দেশ এর স্পেশাল ফোর্স নিরাপত্তার কাজে অংশগ্রহণ করছে বিস্তারিত জানুন

মহা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনে সাতক্ষীরায় ঘিরে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে গোটা সাতক্ষীরা। আগামী ২৭ মার্চ তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের দেবীর ৫১ শক্তিপীঠের মধ্যে অন্যতম পবিত্র একটি শক্তিপীঠ হিসেবে পরিচিত সাতক্ষীরার সুন্দরবন সংলগ্ন শ্যামনগরের ঈশ্বরীপুর যশোরেশ্বরী কালীমন্দির স্থান পরিদর্শন করবেন।

নরেন্দ্র মোদির আগমনী এরইমধ্যে বিশ্বের শক্তিশালী সাতটি দেশ আমেরিকা, ইতালি, উত্তর কোরিয়া, জাপান, এর স্পেশাল ফোর্স সাথে থাকবে বাংলাদেশের প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। জোরদার করা হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সব রকম প্রস্তুতি টহল।

ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আগমনে মতুয়া সম্প্রদায়ের তীর্থ স্থান হিসেবে পরিচিত ঈশ্বরীপুর কালীমন্দির সংলগ্ন হিন্দু ও মতুয়া সম্প্রদায়ে চলছে উৎসবের আনন্দধারা।

সাতক্ষীরা-৪ আসনের সংসদ সদস্য এস এম জগলুল হায়দার ও জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, বাঙ্গালি জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে শুক্রবার (২৬ মার্চ) বাংলাদেশ সফরে আসবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পরদিন ২৭ মার্চ তিনি হেলিকপ্টার যোগে সাতক্ষীরার শ্যামনগরের রাজা প্রতাপাদিত্যের রাজধানী হিসেবে খ্যাত ধুমঘাট এলাকার ঈশ্বরীপুর যশোরেশ্বরী কালীমন্দির পরিদর্শন করবেন। আর সে কারণেই মন্দির এবং সংলগ্ন এলাকা সাজানো হয়েছে নান্দনিক নৈসর্গিক সাজে।

তিনি আরও জানান, সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে শ্যামনগরের সোবাহান মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠের হেলিপ্যাডে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে অবতরণ করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পরে যশোরেশ্বরী কালীমন্দিরে প্রবেশ করে পূজা অর্চনায় যোগ দেবেন তিনি। ফলে গোটা ঈশ্বরীপুর ও মন্দিরসংলগ্ন এক থেকে দুই কিলোমিটার এলাকার মধ্যে কাউকে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না গোয়েন্দা সংস্থা ও আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী। নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে ঈশ্বরীপুর-সহ পুরো শ্যামনগর উপজেলা রাস্তাঘাট।

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে গত ২৩ মার্চ থেকে গোটা সাতক্ষীরায় নিশ্ছিদ্র বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে আইনঙ্খলা বাহিনী। সাতক্ষীরা শহর থেকে শ্যামনগরের ঈশ্বরীপুর মন্দির পর্যন্ত রাস্তার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে যানবাহনে তল্লাশি চালাচ্ছে র‌্যাব-৬ এর টহল দল, পুলিশ ও সাদা পোশাকে থাকা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

র‌্যাব-৬ সাতক্ষীরা ক্যাম্পের উপ-সহকারী পরিচালক জিয়াউল ইসলাম জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সাতক্ষীরা শহর থেকে সুন্দরবন সংলগ্ন শ্যামনগর পর্যন্ত নিরাপত্তা বিশেষ ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। র‌্যাব-৬ সাতক্ষীরার এএসপি বজলুর রশীদের নেতৃত্বে রাস্তার গুরুপূর্ণ স্থানগুলোতে বিশেষ নিরাপত্তা চেকপোস্ট রোবাস্ট পেট্রোলিং-সহ ও বিশেষ নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে।

সাতক্ষীরা থেকে শ্যামনগর অভিমুখে ৪টি স্থানে বাস, ট্রাক,  প্রাইভেটকারসহ সব ধরনের যানবাহন দাঁড় করিয়ে তল্লাশি করা হচ্ছে। এবং সন্দেহভাজন সকল ব্যক্তিদের নজরে রেখেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

পুলিশের পক্ষ থেকেও শ্যামনগর উপজেলাজুড়ে জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও গোয়েন্দা নজরদারি।
এদিকে, বিশ্ববরেণ্য নেতা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বরণ করার অপেক্ষায় শ্যামনগরের মতুয়া ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ। উচ্ছসিত সাতক্ষীরাবাসীও।

সাতক্ষীরা শহর থেকে প্রায় ৫৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত শ্যামনগর উপজেলা। আর এই উপজেলা সদর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে ঈশ্বরীপুরের অবস্থান। দীর্ঘদিন পরে হলেও মোদির আগমনে একটা আনন্দ-উচ্ছাস দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশের অন্যতম স্মৃতিবহুল স্থান ঈশ্বরীপুর মানুষের মধ্যে। নরেন্দ্র মোদির আগমনে ঈশ্বরীপুরের অজপাড়া গাঁ-টি সেঁজেছে নতুন সাজে নতুন রঙ্গে ঢঙে। যেটি এক সময় রাজা-বাদশাদের পদচারণায় মুখরিত ছিল, সেটি এখন শুধুই স্মৃতি। এখানে ছিল যশোরের রাজা প্রতাপাদিত্যের রাজধানী, যার নাম ধুমঘাট।

প্রতাপাদিত্যের রাজধানীতে দীর্ঘকাল কোনও দেশবরেণ্য ও নামিদামি মানুষের পর্দাপণ ঘটেনি। হঠাৎ করেই দেশের গন্ডি পেরিয়ে প্রতিবেশি বন্ধু রাষ্ট্র ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আগমনে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে ঈশ্বরীপুর-সহ ধুমঘাটের পুরো এলাকা।

সনাতনধর্মাবলম্বীদের কাছে ৫১ শক্তিপীঠের মধ্যে অন্যতম পবিত্র একটি শক্তিপীঠ ঈশ্বরীপুর যশোরেশ্বরী মা কালীমন্দির। আর মাত্র একদিন পরেই এই মন্দিরে পূজাঅর্চনায় যোগ দেবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

আরো পড়ুন সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

ফাইলসংকটাপন্ন অবস্থায় বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক কাজী হায়াৎ আছেন লাইফ সাপোর্টে

করোনায় আক্রান্ত বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক কাজী হায়াৎকে গত সোমবার হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। একই হাসপাতালে তাঁর স্ত্রীকেও ভর্তি করানো হয়। এদিকে কাজী হায়াতের পুত্রবধূ রাইসাও তাঁর শ্বশুরের জন্য দোয়া চেয়েছেন দেশবাসীর কাছে।
করোনায় আক্রান্ত চিত্র পরিচালক কাজী হায়াৎ ও তাঁর স্ত্রী রোমিসা হায়াৎকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অবস্থার অবনতি হলে গত সোমবার সকালে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডাক্তারের সাথে কথা বলে জানা গেছে  কাজী হায়াতের অবস্থা অবনতির দিকে। ৮ মার্চ দুজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর তাঁরা দুজন বাসাতে আইসোলেশন ছিলেন।

পরিস্থিতির কিছুটা অবনতি হলে গত সপ্তাহে তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। ২ মার্চ তিনি করোনার টিকা নিয়েছেন। টিকা নেওয়ার পর থেকেই তার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। ৬ মার্চ থেকে জ্বর জ্বর বোধ করছেন তিনি।

করোনা প্রাদুর্ভাব শুরু থেকেই কাজী হায়াৎ খুব সতর্কতা অবলম্বন করতেন  সারাক্ষণ বাসাতেই থাকবো খুব বেশি প্রয়োজন হলে বাড়ির বাহিরে বের হতেন না  জানিয়েছেন, তার মেয়ে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। এ সময় কাজ থেকে বিরত ছিলেন এই নির্মাতা, প্রযোজক ও অভিনেতা। তখন থেকেই ঘরের বাইরে বের হতেন না তিনি। কোনো কাজে বের হলেও থাকত বাড়তি সতর্কতা। মার্চের প্রথম সপ্তাহে জ্বর নিয়ে করোনার নমুনা পরীক্ষা করিয়েছেন এই পরিচালক। নমুনা সংগ্রহের পর পরবর্তী ধাপে ফল আসে কাজী হায়াৎ ও তার স্ত্রী সহ করুন আক্রান্ত।

সম্প্রতি কাজী হায়াৎ অভিনয় করেছেন হিরো আলম প্রযোজিত ‘টোকাই’ ছবিতে। এ ছবিতে অভিনয়ের জন্য ফেব্রুয়ারির ২৬ তারিখ থেকে মার্চের ৬ তারিখ পর্যন্ত শুটিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন। পরবর্তিতে তিনি বাসাতেই ছিলেন। ছবিতে কাজী হায়াৎকে দেখা যাবে নায়িকার বাবার চরিত্রে, যিনি টোকাই চরিত্রের অভিনেতা হিরো আলমকে তাঁর বাড়িতে আশ্রয় দেন।

আরো পড়ুনঃ

আপত্তিকর অবস্থায় ছবি তুলে ব্ল্যাকমেল করে, দুই কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন অভিনেত্রী রুমানা

বিভিন্ন রকম প্রতারণার ফাঁদে জড়িয়ে এক সৌদি প্রবাসীর কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগের মামলায় মডেল ও অভিনেত্রী রোমানা ইসলাম স্বর্ণাকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ।

গত বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) সন্ধ্যায় তাকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের লালমাটিয়া এলাকা একটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট বাসা থেকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের মোহাম্মদপুর জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মৃত্যুঞ্জয় দে সজল। পুলিশ জানিয়েছেন রোমানা স্বর্ণা একাই নয় এরা একটি সঙ্ঘবদ্ধ প্রতারক চক্র। সম্মিলিতভাবে এই চক্র প্রতারণা করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে অন্তরালে।

প্রতারণার শিকার কামরুল হাসান জুয়েল দুই কোটির বেশি টাকা প্রতারণার শিকার হয়েছেন বলে ইতিমধ্যে গণোমাধ্যম ও পুলিশকে বিস্তারিত জানিয়েছে।

ভুক্তভোগী কামরুল হাসান জুয়েল বলেন, আমার ফুফাতো ভাইয়ের মাধ্যমকে তার সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল। পরিচয় হওয়ার এক পর্যায়ে সে ফেসবুকে আমাকে  বন্ধু বানায় । সে আবেগীয় ভঙ্গিমায় অসহায়ত্ব প্রকাশ করে তখন তার এই অভিনয় আমি বুঝতে পারতাম না সরল মনে আমি তাকে বিশ্বাস করেছি। সে বলে আমার মা’কে নিয়ে আমি অসহায় অবস্থায় আছি। আমার একটা ছেলে আছে, লেখাপড়া করাতে পারিনা। নিয়মিত মিডিয়াতে কাজ হয় না। এক কাজ করো আমাকে তুমি একটা উবার কিনে দাও (প্রাইভেট গাড়ি), যেটা দিয়ে আমি সামরিক চলতে পারবো। আমি ১৮ লাখ টাকা দিয়ে উবার কিনে দেই। আমার সব মিলিয়ে সর্বমোট দুই কোটি টাকার মতো নিয়েছে।

তবে পুলিশ জানায় অভিনেত্রী রোমানা স্বর্ণা একটি প্রতারকচক্রের হয়ে কাজ করে আসছে দীর্ঘদিন। প্রথমে প্রেমর সম্পর্ক পরে হেনস্থার ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায় করে থাকে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের তেজগাঁও জোনের উপ পুলিশ কমিশনার হারুন অর রশিদ বলেন, ‘ভুক্তভোগী জুয়েল যখন বিদেশ থেকে আসলো, তখন সে তার স্ত্রী মডেল, অভিনয় করে। তার বাড়িতে গেল। সেসময় এই প্রতারকচক্র করলো কি, তাকে আরো প্রতারণা করার জন্য উলঙ্গ করে ছবি তুললো। এরপর তাকে বললো তুমি যদি আরো টাকা না দাও তাহলে এই ছবি ফেসবুক ও ইন্টারনেটে ছেড়ে দিব। সেই ভয়ে ভুক্তভোগী আরো কিছু টাকা দিলেন।’

অর্থাৎ বাসায় নিয়ে বিবস্ত্র করে (জামা-কাপড় কাপড় বিহীন) ব্ল্যাকমেইল করে ফেঁসে গেলেন রোমানা স্বর্ণার। এমনটাই পুলিশ জানিয়েছেন।

তেজগাঁও জোনের এই পুলিশ কর্তা আরো জানান কামরুল হাসান জুয়েলের মতো প্রবাসী অনেকেই প্রেমের ফাঁদে পড়ে টাকা খোয়াচ্ছেন। একাধিক পুরুষের সাথে দীর্ঘদিন ধরে এরকম কাজ করে আসছিল রোমানা স্বর্ণা।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- আশরাফি ইসলাম শেইলী (৬০), নাহিদ হাসান রেমি (৩৬), আন্নাফি (২০), ফারহা আহম্মেদ (৩০) ও অজ্ঞাত এক যুবক (৩৭)।

সঠিক নিয়মে বিজ্ঞাপন দিন দ্রুত পণ্য বিক্রি করুন 

বিজ্ঞাপন দিন সঠিক নিয়ম (1)
ফাইল ছবি

কেন খবর অনলাইন?

সম্মানিত পাঠকদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, এখন থেকে নিয়মিতভাবে ডেইলি সিলেট 24 ডটকম তথ্যবহুল ও আলোচিত, পাঠক নন্দিত ওয়েব সংস্করণ dailysylhet24.com এ আকর্ষণীয় মূল্যে বিজ্ঞাপন প্রচার করা হচ্ছে।

‘ডেইলি সিলেট 24 ডটকম’ ওয়েবসাইটে দেয়া বিজ্ঞাপনের সাথে লিঙ্ক থাকবে বিজ্ঞাপনদাতা কোম্পানির নিজস্ব ওয়েবসাইটের।

তথ্য-প্রযুক্তির এ যুগে কোনো প্রতিষ্ঠান বা পণ্যের বিজ্ঞাপনের জন্য মানুষ এখন নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে ইন্টারনেটের উপর। তাই আপনার প্রতিষ্ঠান কেন পিছিয়ে থাকবে? আপনার প্রতিষ্ঠান কিংবা পণ্যের প্রসারে সাহায্য করবো আমরা। আমরা আপনাদের সাথে আছি। খুব স্বল্প মূল্যে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপণ দেওয়ার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আমরা সাপ্তাহিক এবং মাসিক ভিত্তিতে বিজ্ঞাপণ গ্রহণ করি।

জোয়ার এসেছে ডিজিট্যাল প্রকাশনায়। এই জোয়ার আসার অনেক আগেই খবর অনলাইনের পথ চলা শুরু হয়েছে। খবরের গুণগত মান এবং বিশ্বাসযোগ্যতা মন জয় করেছে পাঠকের। মননশীল পাঠক খবর অনলাইনের সম্পদ। ফেসবুক বুস্ট এর চেয়েও দ্রুত ফল পাবেন। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেওয়ার মাধ্যমে মিনিটে লক্ষ লক্ষ পাঠকের কাছে চলে যায়। ফলে আপনার প্রোডাক্টের কদর রাতারাতি বেড়ে যায় ও বিক্রি দ্রুত বৃদ্ধি পায়। আমাদের এখানে বিজ্ঞাপন দিয়ে অনেকেই প্রতিষ্ঠিত।

কিন্তু প্রতিষ্ঠিত সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিতে যে পরিমাণ খরচ হবে, তার চেয়ে অনেক কম খরচে আপনি আপনার ‘প্রোডাক্ট’-এর তথ্য পৌঁছে দিতে পারবেন ক্রেতাদের কাছে।

উত্তরোত্তর বাড়ছে পাঠকের সংখ্যা
বিশ্বাসযোগ্যতা এবং খবরের গুণগত মান পাঠককে আকৃষ্ট করে। আর পাঁচটা প্রতিষ্ঠিত পত্রিকার মতোই ডিজিট্যাল মাধ্যমের পাঠক প্রতি দিন নজর রাখেন খবর অনলাইনে। ফলে রোজই নতুন পাঠকের সংখ্যা যেমন বাড়ছে তেমনি বাড়ছে ফিরে ফিরে আসা পাঠকের সংখ্যাও। ফলে আপনার দেওয়া বিজ্ঞাপন থেকে ‘রিটার্ন’ পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়ছে।

  1. কম টাকায় বেশি দিন বিজ্ঞাপন দেয়া যাবে।
  2. কম খরচে অধিক প্রচার ও প্রসারের উদ্দেশে।
  3.  আপনার মনমতো সাইজের অ্যাড দিতে পারবেন।
  4.  এক জায়গায় চাইলে একসাথে একাধিক বিজ্ঞাপন দেয়া যাবে।
  5.  আপনি চাইলে আপনার বিজ্ঞাপন সংশ্লিষ্ট ডিজাইন, ছবি, লেখা, ফ্লাশ ব্যানার আমাদের থেকে বানিয়ে নিতে পারেন। তাই দেরী না করে আমাদের সাথে আজই যোগাযোগ করুন।

সার্চ ইঞ্জিন
ওয়েবের জগতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে সার্চ ইঞ্জিনের। তথ্যের সমুদ্রে যাতে সহজে খুঁজে পাওয়া যায়, তার জন্য সৃজনশীল ভাবে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO) করে খবর অনলাইন। তাই আপনার বিজ্ঞাপিত পণ্যের তথ্য খুব সহজেই খুঁজে পাওয়া যাবে সার্চ ইঞ্জিনে।

কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দেওয়া যেতে পারে
ব্যানার বা প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনি বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। কোন ধরনের বিজ্ঞাপন আপনার পণ্যের জন্য সঠিক হবে তা আমাদের প্রতিনিধি আপনার সঙ্গে কথা বলে ঠিক করবেন। এর জন্য আমাদের প্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

খবর অনলাইন যেমন গুরুত্ব দেয় পাঠককে, সমান গুরুত্ব দেয় বিজ্ঞাপন দাতাকে।

  • যোগাযোগ করুন
  • মোঃ শিমুল রানা
  • মোবাইল- ০১৭১৯৪২৬৫৬০
  • ইমেল করুন
  • E-mail : dailysylhet24.com@gmail

নবাগত নায়িকা দিঘি হিরো আলমকে কটাক্ষ করে কথা বলায় ক্ষেপলেন হিরো আলম

আরো পড়ুন

সম্প্রতি কোন এক শুটিং সেটে এক ইন্টারভিউতে হিরো আলমকে কটাক্ষ করে কথা বলতে দেখা যায়। দিঘি বলে হিরো আলমের কোন যোগ্যতা নাই ও কিভাবে হিরো হয়। তার এই ভিডিওটি নেট দুনিয়ায় তোলপাড় শুরু হয়। কেউ পক্ষে কথা বলছে আবার কেউ বিপক্ষে বলছে। তবে হিরো আলম তার অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে এসে একটি মেসেজ দিয়েছেন দীঘির উদ্দেশ্য, সেখানে হিরো আলম বলেন, মানুষকে ছোট করা ঠিক না তুমি এখনো অনেক ছোট।  তোমার কাছ থেকে এ ধরনের কথা জাতি আশা করে না। তোমার কাউকে অপছন্দ হতেই পারে কিন্তু সেটা কোন ইন্টারভিউ তে কাউকে মেনশন করে বলবে সেই অধিকার তোমার নেই। এখনো সময় আছে নিজেকে শুধরাও। আমি কিন্তু চাইলেই তোমার নামে মানহানির মামলা করতে পারে কিন্তু আমি এসবে যাব না। তুমি আমার বয়সের থেকে অনেক ছোট। সম্মান আদব-কায়দা এগুলা অর্থ দিয়ে বিচার করা যায় না, এগুলো অর্জন করে নিতে হয়। আমি হিরো আলম আজকের এই জায়গায় এসেছি শুধু আমার ইচ্ছা শক্তি দিয়ে কারো করুণা হয়ে নয়। একটা কথা মনে রেখো তোমাকে নিয়ে মাথা ঘামানোর সময় আমার নেই। বাস্তবতাটা যত সহজ মনে করতেছ ততটা সহজ নয়। পৃথিবীটা একটা জীবন যুদ্ধের জায়গা এখানে কেউ কারো নয়। এজন্য জীবন চলার পথে খুব সাবধানে পথ চলা শুরু করতে হবে। শুরুতেই যদি হোঁচট খাও তাহলে আজীবন সেটার খেসারত তোমাকে দিতে হবে।

হিডেন (গোপন) ক্যামেরা কিনুন অ্যামাজন থেকে লিংক

spy camera
ছবির উপরের লিংকে ক্লিক করুন

প্রসঙ্গত, শিশুশিল্পী থেকে নায়িকা হয়ে দর্শকের সামনে আসতে চলেছেন প্রার্থনা ফারদিন দীঘি। তার প্রথম সিনেমা হিসেবে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ‘তুমি) আছো তুমি নেই’। ১২ মার্চ মুক্তি পাবে দেলোয়ার জাহান ঝন্টু পরিচালিত এই ছবিটি।

সম্প্রতি এর ট্রেলার প্রকাশ হলে সেটি ব্যাপকভাবে সমালোচনার শিকার হয়। এতে বিব্রত হন দীঘিও। তিনিও সাক্ষাৎকারে গণমাধ্যমে দাবি করেন, ‘ছবিটি বেশ মানহীন। সিনেমাটি চলবে না।’

তবে এখানে হিরো আলম তাকে সম্মান দিয়ে কথা বলেছে এবং খুব কৌশলে তাকে সাবধান করে দিয়েছে। যেন ভবিষ্যতে দ্বিতীয় বার ভুল না করে। এটা সত্যি মানবতা পরিচয় দিয়েছে হিরো আলম। চাইলেই কিন্তু দিঘির বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করতে পারতেন কিন্তু সেটা তিনি করেননি। দিঘিকে ক্ষমা করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন হিরো আলম।

ফেসবুক লাইভে এসে বিষপানে আত্মহত্যা করেন এক যুবক
ভিডিওটি নিচে দেওয়া আছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পারভেজ (২৩) নামের এক যুবক বিষপান করে আত্মহত্যা করেছে। শুক্রবার দুপুরের দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সে জেলা সদরের খয়াসার গ্রামের মৃত দুলাল মিয়ার ছেলে। এদিকে ফেসবুক লাইভে এসে পারভেজ বিষপান করার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ফেসবুক লাইভে করায় তা তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে । ঘটনাটি নিয়ে চলছে শহর জুড়ে তোলপাড়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পারভেজের বাবা মারা যাওয়ার পর তার মাকে নিয়ে খয়াসার এলাকায় বসবাস করে আসছিলেন। জীবিকার তাগিদে এলাকার জীবন মিয়া নামের এক পাইপ ফিটিংসের মিস্ত্রীর সাথে কাজ করতেন। এর মাঝে জীবনের কাছ থেকে সুদে বেশকিছু টাকা দার করেন।

তার করা টাকা পারভেজ সময় মত দিতে পারছিলেন না। এরই জেরে বৃহস্পতিবার রাতে জীবন দলবল নিয়ে পারভেজকে আটক করে ব্যাপক মারধোর করে। সেই ক্ষোভ থেকে পারভেজ শুক্রবার দুপুরে ফেসবুক লাইভে এসে বিষপান করে আত্মহত্যা করে। তবে ফেসবুক লাইভে আরেকটি কথা স্পষ্টভাবে বলে যায় সেটি হচ্ছে ভালোবাসা এখানে মেয়ে জনিত কোন ঘটনা থাকতে পারে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে জীবন যে তাকে মেরেছে সেটা সে লাইভে এসে বলেছে।

এদিকে ঘটনা পর জীবন গা ডাকা দিয়েছে। এলাকায় তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ঘটনার পর থেকেই জীবন অন্যত্র পালিয়ে গেছে জীবনকে খুঁজতে পুলিশ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম বলেন, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে রাখা আছে। আমরা জীবনকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। সম্পূর্ণ বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন

স্ত্রীকে সাত টুকরো করল ঘাতক স্বামী, ঘাতকের বাড়ি বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ইসলামপুর গ্রামে

গাজীপুরে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার পর লাশ সাত টুকরো করার ঘটনায় নিহত গৃহবধূ রেহানা আক্তারের ভাই মো: হোসাইন শহিদ বাদি হয়ে সোমবার জয়দেবপুর ইতিমধ্যেই থানায় মামলা দায়ের করেছেন । এদিকে পুলিশের হাতে গ্রেফতারকৃত স্বামী জুয়েল আহমেদকে সোমবার গাজীপুর আদালতে পাঠানো হলে আদালতে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জয়দেবপুর থানার এসআই রাকিবুল ইসলাম জানিয়েছেন, গ্রেফতারকৃত স্বামী জুয়েল আহমেদকে সোমবার গাজীপুরের অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল আদালতে হাজির করানো হয়। আদালতে সে তার স্ত্রীকে হত্যার পর সাত টুকরো করার কথা অকপটে স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।

পরবর্তীতে ঘাতক আসামিকে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ প্রদান করেন।
তিনি আরো জানান, রেহানাকে বিয়ের আগে জুয়েল আরো একটি বিয়ে করে। সেই বিয়ের কথা দ্বিতীয় স্ত্রী রেহানা জানতো না যখন প্রকাশ পায় পূর্বের বিয়ের কথা তখন থেকে তাদের কলহ শুরু হয়। সেখানে তার একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে। গত ছয়মাস আগে জুয়েল-রেহেনা পালিয়ে বিয়ে করে।

গত বৃহস্পতিবার পারিবারিক কলহের জেরে গৃহবধূ রেহেনা আক্তারকে শ্বাসরোধে হত্যার পর তার মরদেহ সাত টুকরো করে বস্তাবন্দি করে পাশের ঝোপে ফেলে রাখে স্বামী জুয়েল। ঘটনার পর থেকেই ঘাতক জুয়েল স্বাভাবিকভাবেই অফিস করছিল। লাসের পছন্দরে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে চতুর্দিকে তখন এলাকাবাসী বিষয়টি পার্শ্ববর্তী থানাতে অবগত করেন। পরে রবিবার গাজীপুর সদর উপজেলার মনিপুর এলাকা থেকে লাশের টুকরোগুলো পুলিশ উদ্ধার করে এবং স্বামী জুয়েলকে আটক করে ও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করা হয়।

আমাদের ওয়েবসাইট সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক

চিত্রনায়ক শাহীন আলম এর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন হিরো আলম আজ সোমবার (০৮ মার্চ) ডেইলি সিলেট ২৪ কে পাঠানো শোকবার্তায় গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

শোকবার্তায় হিরো আলম শাহিন আলমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

কিডনিজনিত জটিলতায় ও করোনাভাইরাস পজিটিভ নিয়ে আইসিওতে ভর্তি ছিলেন তিনি সোমবার রাত ১০টা ৫ মিনিটে তিনি মারা যান। তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন  শাহীন আলমের ছেলে ফাহিম নূরে আলম।

এর আগে গত সপ্তাহে তাকে পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। গত ৬ মার্চ থেকে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন অভিনেতা শাহীন আলম।
শাহীন আলমের ছেলে ফাহিম নূর আলম ডেইলি সিলেট ২৪ কে বলেন, ‘আগে থেকে বাবা কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন তার দুটি কিডনি বিকল ছিল। গত সোমবার তার জ্বর আসে। আর শনিবার তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

১৯৮৬ সালে নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে সুযোগ সৃষ্টি করেন শাহিন আলম। তার অভিনীত প্রথম সিনেমা ‘মায়ের কান্না’ ১৯৯১ সালে মুক্তি পায়। এর পরে একের পর এক ব্যবসাসফল ছবি উপহার দিয়েছেন।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে- ঘাটের মাঝি, এক পলকে, গরিবের সংসার, তেজী, চাঁদাবাজ, প্রেম প্রতিশোধ, টাইগার, রাগ-অনুরাগ, দাগী সন্তান, বাঘা-বাঘিনী, আলিফ লায়লা, স্বপ্নের নায়ক, আঞ্জুমান, অজানা শত্রু, দেশদ্রোহী, প্রেম দিওয়ানা, আমার মা, পাগলা বাবুল, শক্তির লড়াই, দলপতি, পাপী সন্তান, ঢাকাইয়া মাস্তান, বিগবস, বাবা ও বাঘের বাচ্চা।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ সিনেমা যখন অশ্লীলতা শুরু হয় তখন সরাসরি সিনেমার সাথে জড়িত ছিলেন। পরবর্তীতে তার ভুল বুঝতে পেরে সিনেমা জগৎ থেকে একেবারের জন্য চলে আসেন। পরবর্তীতে তিনি গার্মেন্টস ব্যবসা শুরু করেন। পৈত্রিক সূত্র থেকে নিউ মার্কেটের তার দুইটা শোরুম ছিলো। তিনি শেষ সময় ব্যবসায় মনোযোগ দিয়ে ছিলেন।

সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

নারী দিবসে এক নারীকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিল রাস্তায় (ভিডিওসহ)

নিচে ভিডিওটি দেওয়া আছে

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে একটি ভিডিও ভাইরাল হয় ।ভিডিওর অংশে দেখা যায়, ধাক্কা দিয়ে বাস থেকে ফেলে দেয়। মহিলাকে রাস্তায় গড়াগড়ি করতে দেখা যায়।  আশেপাশের লোকজন এসে মহিলাটিকে সেবা-যত্ন করে। পথচারী একজন ভিডিও করছিল ভিডিওতে বাসের প্লেট নাম্বার ঢাকামেট্রো উল্লেখ আছে।

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে আজকে এরকম ঘটনা আসলেই সকলের মনে নাড়া দিয়েছে, এটি একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা কোনভাবেই কাম্য নয়। কারো ক্ষেত্রে বিশেষ এই দিনে নারীকে এরকম লাঞ্ছনা সত্যি বড্ড বেমানান। প্রকৃতপক্ষে দোষী সাব্যস্ত কে অতিশীঘ্রই শাস্তির দাবি জানিয়েছে পথচারীরা ও এলাকাবাসী।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জানা যায় ওই বাসের হেলপার মহিলাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেই।  তাৎক্ষণিকভাবে ওই বাস আটকাতে না পারলেও ভিডিওতে বাসের প্লেট নাম্বার উল্লেখ্য আছে অবশ্যই প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে সকলেই যেন দ্রুত এই বাস টিকে শনাক্ত করে দুসি সাব্যস্ত কে দ্রুত শাস্তির ব্যবস্থা করা।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন

সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

হিরো আলম আমার ছেলের মত ওকে ঠিকমতো যত্ন করলে সুপারস্টার হয়ে উঠবে, ‘কাজী হায়াৎ’

চতুর্দিকে যখন হিরো আলম সমালোচিত তার প্রযোজিত ছবি টোকাই নিয়ে তখন কাজী হায়াৎ বলেছেন, আমি তার পাশে আছি অবশ্যই সে একজন শিল্পী আমি তাকে অবশ্যই স্নেহ করি। অন্যরা ভালো পারলে হিরো আলম কেন পারবে না। আর আজকের হিরো আলম এই জায়গায় এসেছে ওর নিজের যোগ্যতায়।

নিজের প্রযোজিত দ্বিতীয় ছবি নিয়ে ঈদ মাতাতে আসছেন আলোচিত সুপারস্টার হিরো আলম। তার নতুন ছবির নাম ‘টোকাই’। প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন হিরো আলম নিজেই। এরই মধ্যে ছবির শুটিং এর কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

গেলো ২৭ ফেব্রুয়ারি শুটিং শুরু হওয়া ছবির কাজ শেষ হয়েছে ৬ মার্চ। রাজধানীর অদূরে পুবাইলসহ বেশ কয়েকটি লোকেশনে এই ছবির দৃশ্যধারণ করা হয়েছে।

হিরো আলম বলেন, আসছে মাহে রমজান অ্যাপ শেষদিকে ঠিক ঈদের পূর্ব মুহূর্তে ছবিটি মুক্তি দেবো। এই ছবিতে কাজী হায়াত সাহেব, রেহেনা জলি, ড্যানি রাজ, দুলারী, রিনা খানের মতো গুণী শিল্পীরা অভিনয় করেছেন। ছবির একটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন দেশ বরেণ্য কণ্ঠশিল্পী মনির খান আরো কণ্ঠ দিয়েছেন সুইটি ও রাশেদ খান।

হিরো আলম বলেন, চমক আরও আছে ভাই। আমার এই ছবির মাধ্যমে একসময়ে সুপারস্টার অভিনেতা মেহেদী হাসান আমার এই ছবির মাধ্যমে ফিরে আসছে আশা করি তাকে এখন থেকে নিয়মিত পাবেন বাংলাদেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে। আমার গাওয়া একটি গানে ঠোঁট মেলাতেও দেখা যাবে তাকে।

ছবির গল্প নিয়ে তিনি বলেন, একজন টোকাইয়ের জীবনের গল্প এই ছবিতে তুলে ধরেছি। আবেগীয় গল্পের ছবি। ঈদের ছবি হিসেবে দর্শকদের পুরো বিনোদন দিতে পারবে আমার এই ছবিটি আশা রাখি।

‘টোকাই’ ছবিতে হিরো আলমের বিপরীতে দুইজন নায়িকাকে দেখা যাবে। তারা হলেন নুসরাত ও রিয়া। আর নায়ক মেহেদীর বিপরীতে রয়েছেন ইরা শিকদার। এছাড়া ছবির আরও একজন নায়ক হলেন নাহিদ। এর গল্প লিখেছেন এ আর মুকুল নেত্রবাদী। পরিচালনা করেছেন বাবুল রেজা।

হিরো আলম প্রযোজিত প্রথম ছবি ‘সাহসী হিরো আলম’ গেলো বছরের অক্টোবরে মুক্তি পেয়েছিল।

প্রসঙ্গত হিরো আলম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ আলোচিত একজন ব্যক্তি। গত কয়েক বছর ধরেই বাংলাদেশ ও পার্শ্ববর্তী দেশ ইন্ডিয়াতে সুনাম রয়েছে। বগুড়ার ছেলে হিরো আলম প্রথম ডিশ ব্যবসায়ী ছিলেন। সেই থেকে শখের বসে মিউজিক ভিডিওতে গান করতেন এরপর থেকেই তিনি একের পর এক মানুষকে বিনোদন দিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি রাজনীতি চর্চা করছেন তিনি। তার এলাকাতে এমপি নির্বাচন করেছিলেন। তার প্রথম ছবি সাহসী হিরো আলম, এরপর মার ছক্কা। এবার টুকাই ছবির মাধ্যমে নতুন করে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছেন তার জীবন কাহিনী।

সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

হিরো আলম প্রযোজিত দ্বিতীয় ছবি টোকাই আসছে খুব শীঘ্রই

প্রতি মুহূর্তের সংবাদ পাঠক-দর্শকদের জানিয়ে দেয়া সাংবাদিকের নিত্য দিনের কাজ। এই কাজ করতে গিয়ে অনেকে সময় জীবনকে চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়তে হয় অনেক সংবাদকর্মীর। কখনও যুদ্ধক্ষেত্র, তো কখনও রাজনীতির মাঠ, আবার কখনও বিনোদনের আসরে তাদের থাকতে হয় খবরের অপেক্ষায়। কখনও পাহাড়ের কনকনে ঠাণ্ডায় আবার কখনও মরুভূমির কাঠফাটা রোদে ঘুরতে হয় আবার কখনো ভয়াবহ আগুনের অগ্নিশিখা সংবাদ গ্রহণ করতে হয় সাংবাদিকদের।

এসব করতে গিয়ে প্রাণহানীও ঘটে ইতিপূর্বে অনেক ঘটেছেও। তবুও নিজের দায়িত্ব থেকে সরে যান না তারা। আর লাইভ রিপোর্টিংয়ের ক্ষেত্রে তো অনেক সমস্যার মুখে পড়তে হয় সাংবাদিকদের। আবার কখনও নানা মজার জিনিসও এই সময় দেখতে পাওয়া যায়।
তেমনই এক মজার ঘটনা ঘটল কানাডায়। টরেন্টোর একটি টিভি চ্যানেলের হয়ে পাহাড়ের মাথায় দাঁড়িয়ে লাইভ নিউজ আপডেট দিচ্ছিলেন আনোয়ার নাইট। তিনি জানাচ্ছিলেন ওই সময় ওই এলাকার আবহাওয়া কেমন। বরফে ঢাকা গোটা পাহাড়। হঠাৎ করেই ঘটে যায় বিপত্তি। আনোয়ারের পা পিছলে যায় সাথে সাথে প্রায় অনেক দূর পর্যন্ত গড়িয়ে চলে যায়। এবং তিনি নিচের দিকে পড়তে থাকেন। এই অবস্থাতেও একবারের জন্যও সংবাদ পরিবেশনা বন্ধ রাখেননি ওই সাংবাদিক। একটা সময় তিনি নিজেকে সামলে নিয়ে ফের উঠে দাঁড়ান তিনি এবং হাসতে থাকেন। খবর শেষ করেন ওইভাবেই।

বড় কোনও বিপদ ঘটেই যেতে পারত। কিন্ত তা হয়নি। তবে এই ভিডিওটি আনোয়ার তার ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেন। যা ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়। সকলেই প্রশংসায় ভরিয়েছেন তাকে।

আরো পড়ুন

গভীর সমুদ্রের জাহাজ ডুবে ১৫০ ফুট নিচে তিনদিন থেকেও বেচে ফিরলেন এক যুবক

রাতের বেলা টয়লেটে যাওয়া অনেকেরই অস্বস্তি লাগে। তাই না? কার ই বা ইচ্ছে হয় এতো আরামের বিছানা ছেড়ে উঠতে? শীতকালে তো কাঁথার ভেতর থেকেই বের হতে ইচ্ছে হয় না অনেকেরই। কিন্তু, রাতের বেলা বিছানা ছেড়ে টয়লেটে যাওয়াই ২৯ বছর বয়সী নাইজেরিয়ান ‘হ্যারিসন ওকিনি’র জীবন বাঁচিয়েছিল।

হ্যারিসন পৃথিবীর একমাত্র ব্যক্তি, যিনি সমুদ্রের একেবারে তলানিতে নিচে ডুবে যাওয়া জাহাজে প্রায় তিন দিন আটকে ছিলেন। এমনকি কোনো অঘটন ছাড়াই জীবিত ফিরে এসেছেন এই ব্যক্তি। চলুন আজ আপনাদের হ্যারিসন ওকিনির বেঁচে যাওয়ার গল্পটা বিস্তারিত জানাই। অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি যে হ্যারিসন ওকিনি তিন দিন পর্যন্ত সমুদ্রের তলদেশে জীবিত অবস্থায় ছিলেন কোনরকম হতাহতের ঘটনা ছাড়াই।

আটলান্টিক মহাসাগরের দক্ষিণ পূর্ব দিকে নাইজেরিয়ার পার্শবর্তী একটি জায়গা গালফ অব গিনি। যেটি তেল সংরক্ষণের জন্য বেশ পরিচিত জায়গা। অয়েল রিগের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত সেখান থেকে প্রচুর পরিমাণে তেল আহরণ করা হয়ে থাকে। ২০১৩ সালের ২৬ মে নাইজেরিয়া থেকে প্রায় ২০ মাইল দূরে একটি জাহাজে তেল উত্তোলনের কর্ম চলছিল। সেভ্রোন অয়েল ট্যাংকার নামক জাহাজটিকে সমুদ্রের উত্তাল ঢেউ থেকে রক্ষা করতে রয়েছে তিনটি ট্যাগ বোর্ট। কিন্তু জ্যাসকোন ৪ নামে একটি ট্যাগ বোর্ট হঠাৎ ভোর ৫ টার দিকে সমুদ্রের তীব্র স্রোতে আকস্মিকভাবে ডুবে যায়। দুর্ভাগ্যক্রমে বোর্টের সবাই তখন ঘুমাচ্ছিল। কিন্তু সে সময়টায় বোর্টের বাবুর্চি হ্যারিসন ওকিনি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে উঠেছিল। আর এটাই ছিল তার বেঁচে যাওয়ার কারণ। বোর্টটি ডুবে যাওয়ার পর হ্যারিসন টয়লেটে আটকে যান। পানির প্রবল স্রোতে টয়লেটের দরজাও আটকে যায়। অনেক চেষ্টার পর যখন হ্যারিসন দরজাটি খুলতে পারলেন, তখন পানির স্রোত তাকে ভাসিয়ে অন্য একটি টয়লেটে নিয়ে যায়।

এদিকে জ্যাসকোন ৪ তখন উল্টে গিয়ে পানির নিচে তলিয়ে গেছে। হ্যারিসন বেসিনের পাইপ ধরে কোনোমতে তার নাক পানির উপরে ভাসিয়ে রাখেন। বোর্টটি ডুবে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই অন্যান্য জাহাজ থেকে তাদের উদ্ধার করার চেষ্টা চালানো হয়। তবে ডুবুরিরা বোর্টটির অবস্থান জানতে পারলেও সমুদ্রের দেড়শ ফিট নিচে পৌঁছানো তাদের সম্ভব ছিল না একেবারে। বোর্টের কেউ জীবিত নেই ভেবে তারা উদ্ধার কাজ সমাপ্ত ঘোষণা করে চলে যাই।উল্টে যাওয়া বোর্টের ভেতর আটকে থাকা বাতাসে তখনো হ্যারিসন ভেসে ছিলেন। একদিন টয়লেটে থাকার পর হ্যারিসন অন্ধকারের মধ্যেই সাঁতরে আগাতে থাকেন। এক সময় তিনি ইঞ্জিনিয়ারের কক্ষে গিয়ে পৌঁছান। সৌভাগ্যক্রমে এখানে প্রায় ৪ ফুট উচ্চতায় বাতাস জমে ছিল। ঠিকভাবে নিঃশ্বাস নিতে পারার পরই হ্যারিসন অন্য ব্যাপারগুলো নিয়ে ভাবতে শুরু করেন। তার পরনে ছিল শুধু একটি হাফপ্যান্ট। সমুদ্রের ঠাণ্ডা পানিতে থাকতে থাকতে হ্যারিসনের শরীরের তাপমাত্রাও কমতে শুরু করে। হ্যারিসন অন্ধকারেই হাতরে কিছু কাঠের টুকরা আর ম্যাট্রেক্স খুঁজে পান। তা দিয়েই একটি ভেলার মতো বানিয়ে তার উপর বসে থাকতে চেষ্টা করেন।

চারদিক থেকে নানা রকম শব্দ হ্যারিসনের কানে ভেসে আসছিল। সেইসঙ্গে পচে যাওয়া লাশের গন্ধ। হ্যারিসন তার পরিবার-পরিজনদের কথা মনে করতে থাকেন। আর সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করতে থাকেন। এদিকে দ্য লিউ এ টোকেন নামে একটি উদ্ধারকারী জাহাজ ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়। হ্যারিসনের কোম্পানি ওয়েস্ট আফ্রিকান ভেঞ্চার মৃত নাবিকদের লাশ খুঁজে আনার জন্য ডিসিয়েন গ্লোবাল নামে উদ্ধারকারী সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করে। ৬ জন ডুবুরি অভিযানের জন্য প্রস্তুত হন। একজন সুপারভাইজার ডুবুরিদের মাথায় লাগানো ক্যামেরার সাহায্যে সব তদারকি করছিলেন। বোর্টের লোহার দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকতে ডুবুরিদের প্রায় ১ ঘন্টা সময় লেগে যায়।ডুবুরিরা বোর্টের ভেতরে ঢুকেই নাবিকদের লাশ খুঁজতে থাকে। প্রথমে তারা পাঁচটি লাশ খুঁজে পায়। একজন ডুবুরি পানির মধ্যে থেকে তার হাত কেউ ধরেছে এমন অনুভব করেন। এরপরই হ্যারিসনকে দেখতে পান ডুবুরি। এদিকে হ্যারিসন দরজা ভাঙ্গার শব্দ শুনতে পাচ্ছিলেন। কিন্তু কেউ তার দিকে না আসায় তিনি নিজেই সাঁতরে এগিয়ে যেতে থাকেন। প্রথমে ডুবুরি আঁতকে উঠলেও হ্যারিসনকে জীবিত পেয়ে খুশিই হন। এটা একটা লোমহর্ষক কাহিনী।

তবে সমুদ্রের ১৫০ ফুট নিচে ডুবুরিদের ২০ মিনিটের বেশি থাকা ঝুঁকিপূর্ণ ছিলো । অথচ সেখানে গত তিন দিন ধরে কোনো রকম কোনো সাহায্য ছাড়াই হ্যারিসন বেঁচে ছিলেন । যা সবাইকেই বেশ অবাক করে দিয়েছিল। সমুদ্রের নিচে থাকার ফলে হ্যারিসনের শরীরে যে পরিবর্তন এসেছে তাতে সঙ্গে সঙ্গেই উপরে আনা সম্ভব ছিল না। ততক্ষণাৎ তার মৃত্যুও হতে পারে। তাই হ্যারিসনকে গরম পানি খাওয়ানো হয়। এরপর অক্সিজেন মাস্ক পরিয়ে একটি যন্ত্রের সাহায্য পানির উপরে উঠিয়ে আনা হয়।উদ্ধারকারী জাহাজে থাকা ডাক্তাররা তাকে একটি কম্প্রেসর চেম্বারে রেখে চিকিৎসা দিতে শুরু করেন। প্রায় ৬৩ ঘণ্টা পর হ্যারিসন সমুদ্রের নিচ থেকে উদ্ধার পান। জ্যাসকোন ৪ এ থাকা ১২ জন নাবিকের মধ্যে ১০ জনের মৃতদেহ এবং হ্যারিসনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। আর অন্য একজন নাবিকের লাশ খুঁজে পাওয়া সম্ভব হয়নি।

প্রায় তিনদিন পর সুস্থ হয়ে হ্যারিসন তার পরিবারের কাছে ফিরে যান সেখানে সৃষ্টি হয় আবেগঘন পরিবেশের থেকে ফিরে এসেছে হ্যারিসন। এরপর হ্যারিসন তার জীবনকে সাজিয়েছেন অন্যভাবে। বর্তমানে তিনি একটি রেস্টুরেন্টে রাঁধুনির চাকরি করছেন। হ্যারিসন আর কখনোই সমুদ্রে ফিরে যাননি। বোর্টে আটকে থাকা অবস্থায় তিনি শপথ করেছিলেন, বেঁচে থাকলে তিনি আর কখনো সমুদ্রে ফিরে আসবেন না।জীবন কতো বিচিত্র। “রাখে আল্লাহ মারে কে”? প্রচলিত কথাটিই যেন প্রযোজ্য এখানে। হ্যারিসনের ভাগ্য সুপ্রসন্ন হওয়ায় তিনি তিন দিন সমুদ্রের ১৫০ ফুট গভীরে থেকেও বেঁচে গিয়েছেন। জাহাজের ভেতরে আটকে থাকা বাতাসের কারণেই হ্যারিসন বেঁচে ছিলেন এতো সময় পর্যন্ত। সবার ভাগ্যে এমনটা নাও হতে পারে।

আমাদের  ওয়েবসাইট সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

একটি মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে